৪র্থ দফার একাদশে ভর্তি আবেদন শুরু ৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৩

৪র্থ দফার একাদশে ভর্তি আবেদন শুরু হবে ৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ খ্রি. তারিখ হতে। ভর্তি আবেদন না করা শিক্ষার্থীদের পুনরায় সুযোগ দিতে, চতুর্থ পর্যায়ের একাদশ শ্রেণির ভর্তি আবেদন গ্রহণ করা হবে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ আন্তঃ শিক্ষা বোর্ড সমন্বয় ভর্তি কমিটি।

২০২৩ সালের ৪র্থ দফার একাদশে ভর্তি অনলাইন আবেদন ৬-৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত

একাদশ শ্রেণিতে ভর্তি আবেদনে অংশগ্রহণ না করা শিক্ষার্থীদের, নতুন করে ৪র্থ দফার ভর্তি প্রক্রিয়া শুরু হচ্ছে। এছাড়া সবশেষ ৩য় দফায় কলেক সিলেকশন না পাওয়া শিক্ষার্থীরা এই দফায় আবেদন করতে পারবেন।

বাংলাদেশ আন্তঃ শিক্ষা বোর্ড সমন্বয় ভর্তি কমিটির চেয়ারম্যান প্রফেসর তপন কুমার সরকার, একাদশের চতুর্থ দফার ভর্তি আবেদনের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

একাদশ শ্রেণিতে প্রায় ৪ লাখেরও বেশি শিক্ষার্থী ভর্তির জন্য এখনো আবেদন করেননি। বিপুল সংখ্যক শিক্ষার্থী ভর্তি আবেদন না করায়, পুনরায় তাদের আবেদনের সুযোগ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

১ ফেব্রুয়ারি তারিখে ঢাকা বোর্ডের চেয়ারম্যান একাদশ শ্রেণির চতুর্থ দফার ভর্তি আবেদন গ্রহণ করার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। ৬ ফেব্রুয়ারি থেকে ভর্তির এই আবেদন অনলাইনে গ্রহণ করা হবে।

উল্লেখ্য, সকল পর্যায়ে ভর্তি আবেদনে কলেজ সিলেকশন পাওয়া শিক্ষার্থীরা, ২২-২৬ জানুয়ারি তারিখের মধ্য নির্বাচিত কলেজে ভর্তি হয়েছেন। এখন কলেজ নির্বাচন না পাওয়া ও কলেজে ভর্তি না হওয়া শিক্ষার্থীরা ৪র্থ দফায় ভর্তি আবেদন  করতে পারবেন।

৪র্থ দফার ভর্তির অনলাইন আবেদনের ঠিকানা: http://xiclassadmission.gov.bd

আরো পড়ুন:

এইচএসসি-আলিম ভর্তি ২০২২: একাদশ শ্রেণির ভর্তি

৪র্থ দফার একাদশে ভর্তির জন্য যারা আবেদন করতে পারবেন

যে সব শিক্ষার্থীরা একাদশের ৪র্থ দফায় ভর্তির জন্য অনলাইনে আবেদন করতে পারবেন তা নিম্নে উল্লেখ করা হলো-

১. যে সকল শিক্ষার্থী একাদশ শ্রেণিতে এখন পর্যন্ত কোন দফায় ভর্তি আবেদন করেননি।

২. পূর্বে অনলাইনে আবেদন করেছিলেন কিন্তু আবেদন করেও কোন কলেজ সিলেকশন পাননি।

৩. কলেজ সিলেকশন পেয়েছেন কিন্তু নিশ্চায়ন বা ভর্তি হতে পারেননি তারাও আবেদন করতে পারবেন।

উল্লেখ্য, ২০২২-২০২৩ শিক্ষাবর্ষে ৪র্থ দফার একাদশ শ্রেণির ভর্তি নীতিমালা-২০২২ অনুযায়ী শিক্ষার্থীদের কলেজে ভর্তির জন্য নির্বাচন করা হবে। ম্যানুয়ালি কোন কলেজে ভর্তি করা হবে না বলে ইতোপূর্বে ভর্তি বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে।

৪র্থ পর্যায়ের একাদশ শ্রেণির ভর্তি বিজ্ঞপ্তি ২০২৩

একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির জন্য ৪র্থ পর্যায়ের ভর্তি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়েছে। শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও কলেজ অধ্যক্ষদের আবেদনের ভিত্তিতে পুনরায় একাদশের ভর্তি প্রক্রিয়া শুরু করা হচ্ছে।

৪র্থ পর্যায়ের ভর্তি আবেদন গ্রহণ করা হবে ৬ থেকে ৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত। একাদশের ৪র্থ পর্যায়ের আবেদনের ফল প্রকাশ করা হবে ১২ ফেব্রুয়ারি তারিখে।

৪র্থ পর্যায়ে নির্বাচিতদের কলেজ নিশ্চায়ন ও কলেজে ভর্তি হতে হবে ১৩ থেকে ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ খ্রি. তারিখের মধ্যে।

এ বিষয়ে বিস্তারিত জানতে নিচের যুক্ত ভর্তি বিজ্ঞপ্তি পড়ুন।

৪র্থ দফার একাদশ ভর্তি বিজ্ঞপ্তি ২০২৩

২০২৩ সালের একাদশ শ্রেণির ৪র্থ দফার ভর্তি আবেদন সম্পর্কে কোন প্রশ্ন থাকলে আমাদের লিখে জানান।

তথ্যটি সবাইকে জানাতে সামাজিক মাধ্যমে শেয়ার করুন।

আরো দেখুন:

ভর্তি সহায়তা উপবৃত্তির অনলাইন আবেদন ফরম পূরণের নিয়ম

তথ্যসূত্র:

xiclassadmission.gov.bd

Share This:

25 Comments

  1. আমি যদি ২২-২৬ তারিখের ভিতরে কলেজে ভর্তি না হই,তাহলে কি ৪র্থ ধাপে আবেদন করতে পারবো?নাকি বোর্ডে গিয়ে নিশ্চায়ন বাতিল করতে হবে?এইটা তো মনে হয় অটোমেটিক বাতিল হয়ে যাওয়ার কথা।

    1. আমি ১ম পযার্য়েএকটা কলেজে ভতি নিশ্চায়ন করেছি অটোমাইগ্রেশনের পর এখন আমি চতুর্থ দফায় পুনরায় আবেদন করতে পারবো কি??

  2. আমি নিশ্চায়ন কেরেছি আমার চয়েজের কলেজ কিন্তু আমাকে মাইগেসনে আরেক টি কলেজে নিয়া নিছে আমি সে কানে র্ভতি হবয় না আমি কি ৪র্থ বার আবেদন করতে পারবয়

    1. আপনি কোন কলেজে ভর্তি হবেন তা আপনার ইচ্ছাধীন নয়। আপনার পছন্দক্রম অনুসারে কলেজ নির্বাচন করা হয়েছে। ভর্তি না হলে পরবর্তীতে সমস্যা হতে পারে।

  3. জিপিএ-৫+১১৮৪ নাম্বার পেয়েও ভালো কোন কলেজেই চান্স আসছিল না কেননা রাজশাহী বোর্ডে জিপিএ-৫ এর সংখ্যা এবার বেশি যার কাছে আমার জিপিএ-৫ কিছুই ছিল না। ৩ বার আবেদন করে ১ম বার কোন কলেজেই আসেনি তাই চিন্তা বেড়ে গেল কিন্তু আশা ছাড়িনি।২য় বার এমন কলেজে আসছিল যা অনেক দূরে তাই ভর্তি হওয়া সম্ভব না তাই দুশ্চিন্তা আরও বেড়ে গেল তবু আশা ছাড়িনি। আর থাকল ১টাই শেষ চয়েস কিন্তু এটাতে ভালো কোনো কলেজ দিতে পারিনি কারণ সিট বুক। তারপরও এমন কলেজ আসল যা প্রত্যাশিত ছিল না কিন্তু সরকারের বেঁধে দেওয়া নিয়মের কারণে বাধ্য হয়ে নিশ্চয়ন করেছিলাম কি করব আর তো আবেদনের সুযোগ নেই এদিকে মাথাও নষ্ট হয়ে যাচ্ছিল। তবে কলেজটি এমপিও ভুক্ত কলেজ ছিল কিন্তু বেসরকারির মতো ডাকাতি+পড়াশোনা নাই দেখে ভর্তি হয়নি। তাই সিদ্ধান্ত নিই বাড়ির কাছে এমপিও ভুক্ত কলেজে ভর্তি হবো কারণ কলেজ কর্তৃপক্ষ বোর্ডে থেকে ভর্তি করে নিয়ে আসবে। তবে যখন ৪র্থ পর্যায়ের আবেদনের কথা জানতে পারলাম তখন একটু আশার আলো দেখতে লাগলাম। আমি নির্ধারিত সময়ে ভর্তি হয়নি তাই নিয়মানুযায়ী আমার ভর্তি বাতিল হওয়ার কথা। যেহেতু আমার ভর্তি বাতিল হয়ে যায় সেহেতু আমার নিশ্চয়নও বাতিল হয়ে যায়।। তাহলে আমার নিশ্চয়ন কিভাবে বহাল বা টিকে থাকে!?!! আমার কি এখন বোর্ডে গিয়ে নিশ্চয়ন বাতিল করতে হবে? নাকি বাতিল না করেই আমি আবার ৪র্থ পর্যায়ের আবেদন করতে পারব?!? আর বোর্ডে না গিয়েও কি নিশ্চয়ন বাতিল করা যায় কারণ আমাদের বাড়ি থেকে রাজশাহী বোর্ড অনেক দূরে!! আর যদি ৪র্থ পর্যায়ের আবেদনের কয়েকদিন আগে বা আবেদনের দিন জানতে পারি তাহলে বোর্ড কর্তৃপক্ষ কত দ্রুত নিশ্চয়ন বাতিল করে বা করতে পারবে যদিও রাজশাহীতে একদিনের মধ্যে যাওয়া আসাই মুসকিল! কলেজে ভর্তি তো হওয়া নয় যে!সরকারি জাহান্নামে! ভর্তি হচ্ছি আর দিনে দিনে!মানসিক রোগী! হয়ে যাচ্ছি!!! দয়া করে আমার প্রশ্নের যথার্থ উত্তরগুলো দিবেন বলে আমি প্রত্যাশা করি এগুলো মনের দুঃখে লিখেছি কারণ ভাগ্যই যে খারাপ।ধন্যবাদ।।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

1 × 2 =