প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বার্ষিক পরীক্ষা ২০২২: শিক্ষার্থীদের মূল্যায়ন পদ্ধতি

২০২২ সালের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সকল শ্রেণির শিক্ষার্থীদের বার্ষিক মূল্যায়ন পদ্ধতি নির্ধারণ করেছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর।

শিক্ষার্থীদের প্রতিটি বিষয়ের তৃতীয় প্রান্তিক বা বাষিক পরীক্ষা হবে ৬০ নম্বরের। এর সাথে ক্লাস টেস্ট ৪০ নম্বর যুক্ত করে শিখন অগ্রগতির প্রতিবেদন প্রকাশ করতে হবে।

প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বার্ষিক মূল্যায়ন পদ্ধতি ২০২২: শিক্ষার্থীদের বার্ষিক পরীক্ষা ৬০ নম্বরের

২০২২ সালের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ১ম থেকে ৫ম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের প্রতিটি বিষয়ের তৃতীয় প্রান্তিক বা বার্ষিক পরীক্ষা হবে ৬০ নম্বরের। আর পূর্ববর্তী সপ্তাহ ভিত্তিক ক্লাস টেস্ট থেকে ৪০ নম্বর যুক্ত হবে।

১ম থেকে ৫ম শ্রেণির প্রাথমিক শিক্ষার্থীদের, ৫টি বিষয়ের প্রতিটিতে বিষয়ে মোট ১০০ নম্বরের মধ্যে বার্ষিক মূল্যায়ন করা হবে।

বর্তমান শিক্ষাক্রম অনুসারে প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা উঠিয়ে দেওয়ার কারণে এভাবেই শিক্ষার্থীদের মূল্যায়ন করা হবে।

অধিদপ্তর থেকে প্রাথমিকের বার্ষিক মূল্যায়নের পদ্ধতি নির্ধারণ করে, ১ নভেম্বর ২০২২ খ্রি. তারিখে একটি বিজ্ঞপ্তি প্রেরণ করা হয়েছে।

প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের পরিচালক মনীষ চাকমা স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে, প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বার্ষিক মূল্যায়ণের বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে।

আরো পড়ুন:

সরকারি ছুটির তালিকা ২০২৩ (জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের ছুটির প্রজ্ঞাপন)

২০২২ সালের ব্যাংক ছুটির তালিকা (সরকারি-বেসরকারি বাণিজ্যিক ব্যাংক)

এছাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বার্ষিক মূল্যায়ন কীভাবে হবে, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় কর্তৃক প্রেরিত পরিপত্রে বিষয়টি স্পষ্ট করা হয়েছে। এছাড়া শিক্ষার্থী মূল্যায়নের নমুণা ছকের মাধ্যমে বিষয়টি আরো স্পষ্ট করা হয়েছে।

প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বার্ষিক পরীক্ষা ২০২২

প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের জন্য কেন এই বার্ষিক মূল্যায়ন পদ্ধতি?

জাতীয় শিক্ষাক্রম রুপরেখা ২০২১ অনুসারে, এসএসসি বা মাধ্যমিক পরীক্ষার পূর্বে কোনো ধরণের পাবলিক অনুষ্ঠিত হবে না।

নতুন শিক্ষাক্রমে এসব শ্রেণিতে পূর্বের মত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত না হলেও, নতুন প্রবর্তিত ধারাবাহিক মূল্যায়নের উপর ভিত্তি করে প্রতি প্রান্তিকে ফলাফল প্রদান করা হবে।

তবে ২০২৩ সালে ধারাবাহিক মূল্যায়ন প্রবর্তনের পূর্বে, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রচলিত পরীক্ষা তথা মূল্যায়ন পদ্ধতি চলমান থাকবে।

আরো জানুন:

প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষার ফলাফল ১৫ নভেম্বরের মধ্যে

ব্যাংকের অফিস ও লেনদেনের নতুন সময়সূচি (ব্যাংক খোলা রাখার সময়)

সরকারি ছুটির তালিকা ২০২২: জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের ছুটির প্রজ্ঞাপন

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের বার্ষিক মূল্যায়ন যেভাবে (১ম-৫ম শ্রেণি)

২০২২ সালে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বার্ষিক মূল্যায়নের ক্ষেত্রে নিন্মোক্ত নির্দেশনাবলী অনুসরণ করতে বলেছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়।

ক। বাংলা ও ইংরেজি বিষয়ে শোনা, বলা, পড়া এবং লেখা বিষয়গত নির্দেশনা মোতাবেক শিক্ষার্থীর দক্ষতা পরিমাপ করতে হবে। পড়া ও লেখা শ্রেণি পরীক্ষার মাধ্যমে দক্ষতা পরিমাপ করতে হবে।

শিক্ষক বিদ্যালয় খোলার তারিখ হতে যতগুলো শ্রেণি পরীক্ষা গ্রহণ করেছেন তার মধ্যে যে কয়টিতে সর্বোচ্চ নম্বর পেয়েছে এমন পরীক্ষার ৫টির নম্বর গণনা করবেন।

প্রত্যেকটি শ্রেণি পরীক্ষায় ২০ নম্বরের উপর পরীক্ষা গ্রহণ করতে হবে।

খ। গণিত বিষয়ে গাণিতিক ধারণা, প্রক্রিয়াগত ধারণা এবং সমস্যা সমাধানের উপর লিখিত শ্রেণি পরীক্ষা গ্রহণ করতে হবে। এ ধরণের পরিমাপ শিক্ষকগণ এতদিন করে এসেছেন।

সুতরাং শিক্ষক বিদ্যালয় খোলার তারিখ হতে যতগুলো শ্রেণি পরীক্ষা গ্রহণ করেছেন তার মধ্যে যে কয়টিতে সর্ব্বোচ্চ নম্বর পেয়েছে এমন পরীক্ষার ৫টির নম্বর গণনা করবেন।

প্রত্যেকটি শ্রেণি পরীক্ষায় ২০ নম্বরের উপর পরীক্ষা গ্রহণ করতে হবে।

গ। বিজ্ঞান, বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয় এবং অন্যান্য বিষয় সমূহে বিষয় গত জ্ঞান, বৈজ্ঞানিক প্রক্রিয়ার জ্ঞান, দৃষ্টিভঙ্গি ও মূল্যবোধ, সামাজিক ও নৈতিক মূল্যবোধ ও অনুশাসন প্রভৃতি পরিমাপের উপর বিদ্যালয় খোলার তারিখ হতে যতগুলো শ্রেণি পরীক্ষা গ্রহণ করেছেন ভার মধ্যে যে কয়টিতে সর্বোচ্চ নম্বর পেয়েছে এসন পরীক্ষার ৫টির নম্বর গণনা করবেন।

প্রত্যেকটি শ্রেণি পরীক্ষায় ২০ নম্বরের উপর পরীক্ষা গ্রহণ করতে হবে।

ঘ। প্রত্যেকটি বিষয়ের শ্রেণি পরীক্ষা সমুহের মোট নম্বরের (৫টি) 8০% এবং বাকী ৬০ নম্বরের উপর ৩য় প্রান্তিক পরীক্ষা গ্রহণ করতে হবে।

এসব শ্রেণি পরীক্ষা সমূহ ও ৩য় প্রান্তিকের পরীক্ষার নম্বর যোগ করে ২০২২ এর শিক্ষার্থীর অগ্রগতি প্রতিবেদন প্রণয়ন করতে হবে। বাংলাদেশের সকল বিদ্যালয়ে এসব পরীক্ষা একটি সুনির্দিষ্ট তারিখে অনুষ্ঠিত হবে।

ঙ। শিক্ষার্থীর অগ্রগতি প্রতিবেদন প্রণয়ন করার পর প্রত্যেক বিদ্যালয় তাদের নিজ নিজ বিদ্যালয়ের ফলাফল ঘোষণা করবেন এবং শিক্ষার্থীর অভিভাবকের নিকট এই ফলাফল তুলে দিবেন।

চ। শিক্ষার্থীর এই শিখন অগ্রগতির সমন্বিত রেকর্ড প্রত্যেক বিদ্যালয়ে সংরক্ষণ করতে হবে।

এবিষয়ে আরো জানতে মন্ত্রণালয়ের পরিপত্রটি দেখুন।

প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বার্ষিক মূল্যায়ন ২০২২

প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের শিখন অগ্রগতির ধারাবাহিক মূল্যায়ন ছক ২০২২

প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর প্রাথমিকের শ্রেণি শিক্ষা কার্যক্রমের শিখন ফল অগ্রগতির প্রতিবেদন কেমন হবে তার এক নমুণা ছক প্রতিষ্ঠান প্রধানদের প্রেরণ করেছেন।

২০২২ সালের ৩য় শ্রেণির একজন শিক্ষার্থীর শিখন অগ্রগতির প্রতিবেদন কেমন হবে তার নমুণা ছক দেখুন।

এই ছক অনুসরণ করে প্রতিটি শিক্ষার্থীর বার্ষিক মূল্যায়ন করতে হবে।

প্রাথমিক শিক্ষার্থীদের মূল্যায়ন ছক ২০২২

২০২২ সালের প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বার্ষিক পরীক্ষার মূল্যায়ন পদ্ধতি নিয়ে কোন প্রশ্ন থাকলে আমাদের জানান।

তথ্যটি সবাইকে জানাতে সামাজিক মাধ্যমে শেয়ার করুন।

আর দেখুন:

প্রাথমিক শিক্ষক বদলি নীতিমালা ২০২২ (১১ সেপ্টেম্বরের প্রজ্ঞাপন)

প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছুটির তালিকা ২০২২ (২০ এপ্রিল সংশোধিত)

প্রাথমিক-ইবতেদায়ী শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা ২০২২ হচ্ছে না (পিইসি-ইবিটি)

তথ্যসূত্র-

প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর

Share This:

One Comment

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।